বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯, ১২:৫৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ভোটের মাঠে হাতি দিয়ে অন্যরকম প্রচারণা ! পুরান ঢাকার চকবাজারের ভয়াবহ আগুনে দুই চিকিৎসকসহ ছয়জন মারা গেছেন। চিরস্মরণীয় একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস চলে গেলেন কবি আল-মাহমুদ জুড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে সতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা মোঈদ ফারুকের মতবিনিময় সভা পরিনত হলো বিশাল জনসভায়। প্রশিক্ষণার্থীদের সনদপত্র প্রদান করল জুড়ীর হেক্সাস জুড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন, মুক্তিযোদ্ধা এম, এ, মুঈদ ফারুক ইজতেমার কারণে এসএসসির তিন বিষয়ের পরীক্ষা পিছিয়েছে উপজেলা নির্বাচনে মৌলভীবাজারে নৌকার প্রার্থী যারা সিদ্ধান্ত পরিবর্তনঃ উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা পাবেন নৌকা
জুড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে সতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা মোঈদ ফারুকের মতবিনিময় সভা পরিনত হলো বিশাল জনসভায়।

জুড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে সতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা মোঈদ ফারুকের মতবিনিময় সভা পরিনত হলো বিশাল জনসভায়।

নিজেস্ব প্রতিবেদকঃ
জুড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে সতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা মোঈদ ফারুকের মতবিনিময় সভা পরিনত হলো বিশাল জনসভায়।
আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে, জুড়ী
উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে সতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনে নিজের প্রার্থীতার পক্ষে মতামত যাচাই করতে, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায়  উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারনকে তার উত্তর ভবানীপুরস্হ বাসভবনে দাওয়াত করেন।
সেখানে সতস্পুর্ত ভাবে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার কয়েক হাজার মানুষ উপস্তিত হয়ে তাঁকে সমর্তন জানান। এই মতবিনিময় সভায় মোঈদ ফারুক বলেন, আমার ভাই এম,এ, মুমিত আসুক মারা যাওয়ার পর থেকে, বিগত প্রায় সাড়ে তিন বছর জুড়ীর মানুষ কোন উন্নয়ন পাননি, কোন সুবিচার পাননি, হামলা মামলায় আজ জুড়ীবাসি জরজরিত। আমরা দেশ স্বাধীন করে একটি সাম্প্রদায়ীক সম্প্রিতির ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ করতে কাজ করছি, সেখানে একজন চেয়ারম্যান প্রার্থী সাম্প্রদায়ীকতা সৃষ্টি করে নির্বাচনে জিততেচান। আমরা হিন্দু, বৌদ্ধ, খিষ্ট্রান বা অন্য ধর্মের লোকদের সংখ্যালগু হিসাবে দেখিনি সবাইকে দেশের সম্মানীত নাগরিক হিসাবে দেখি, কিন্তু সে নিজেকে সংখ্যালগু দাবী করে একটি সম্প্রদায়ের ভোট তার পক্ষে নিতে চায়, সেটা আর সম্ভব নয়। তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে পরদিন থেকে আপনারা দরজা খুলে ঘুমাবেন, চুর, লুচ্চা বদমাশরা আর জুড়ীতে থাকবেনা। ঘরেঘরে পুলিশি হয়রানি বন্ধ হয়ে যাবে। আমি দেখবো কোনটি মামলায় যাবে আর কোনটি সামাজিক বিচারের মাধ্যমে মিমাংশা হবে। এ পযর্ন্ত যেসব মামলা থানায় ও কোর্টে আছে তা শেষ করার চেষ্টা করবো।
রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন কিভাবে না হয় আমি দেখবো। সারা দেশ যেখানে উন্নয়নে ভাসছে, সেখানে জুড়ীর দিকে থাকান, এতো উন্নয়ন কোথায় গেলো? তিনি বলেন এত মানুষের উপস্তিতি দেখে আমি অভিভুত, কৃতজ্ঞ।
উক্ত সভায় তিনি ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, আওয়মীলীগ,
বিএনপি ও জাতীয় পার্টির নেতৃবৃন্দ বক্তিতা করেন এবং তাঁকে সমর্থন জানান।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




All rights reserved: moulvibazartimes.com
Design & Developed BY Popular-IT.Com